সোয়াইন ফ্লু’র বিপদ মোকাবিলায় মেনে চলুন ১০টি সতর্কতা

0
151

বিশ্বের খুব কম মানুষই গত এপ্রিল মাসের আগে সোয়াইন ফ্লুর নাম জানত। অথচ বর্তমানে বিশ্বের প্রায় সকল পূর্ণবয়স্ক কাণ্ডজ্ঞান সম্পন্ন মানুষ জানে এর বিপদের দিকটি। কারণটি অস্পষ্টও নয়। গত এপ্রিলে ভাইরাসটি দেখা দেয়ার পর এই পর্যন্ত প্রায় ১০ লক্ষ মার্কিনি এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে এবং এর মধ্যে ৫০০ জনের মত মারাও গেছে। কেবল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নয় সোয়াইন ফ্লু এখন ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশে। সমগ্র মানব সভ্যতার সামনে মহা দুর্যোগ হিসেবে উপস্থিত হয়েছে এই ঘাতক ব্যাধি। হোয়াইট হাউসের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে দেশটির ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে। এবং ৩০ হাজার থেকে ৯০ হাজার পর্যন্ত মানুষ মৃত্যুবরণ করতে পারে। তাই বিশ্বের সকল মানুষকেই এই রোগটি সম্পর্কে সচেতন হতে হবে। মাত্র ১০টি সতর্কতা মেনে চললে সোয়াইন ফ্লু’র বিপদ মোকাবিলা করা সকলের জন্যই সহজ হয়ে উঠবে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। এগুলো হল- (১) আতংকিত হবেন না : চিকিৎসকরা বলছেন সিজনাল ফ্লুর চাইতে সোয়াইন ফ্লু খুব বেশি ভয়ংকর রোগ নয়। গত কয়েকমাস ধরে বিভিন্ন পাশ্চাত্য দেশে সোয়াইন ফ্লুতে মৃত্যুর সংখ্যা তেমন বাড়েনি। সাধারণ ফ্লুতে যে পরিমাণ মানুষের মৃত্যু ঘটে সোয়াইন ফ্লুতে তার চাইতে কম মানুষ মারা গেছে এই সময়কালে। বলা যায় দক্ষিণ গোলার্ধে সোয়াইন ফ্লুর প্রকোপ কমে আসছে। (২) ভাইরাসটি সবার জন্য সমান ঝুঁকিপূর্ণ নয় : সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত সকলেই যে ঝুঁকিপূর্ণ তা নয়। চিকিৎসকরা বলছেন, দুই বছরের কম বয়সী শিশু, তরুণ-তরুণী, গর্ভবতী নারী, হাপানি, হৃদরোগ ও ডায়বেটিসের রোগীরা বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। (৩) ঘন ঘন হাত ধূতে হবে : ঘন ঘন সাবান দিয়ে হাত ধূতে হবে এবং শিশুদেরও এই অভ্যাসটি রপ্ত করাতে হবে। এ ক্ষেত্রে শিশুদের ছড়াগান গাইতে বলা যেতে পারে, এবং যতক্ষণ না গান শেষ হচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত হাত ধূতে বলতে হবে তাদের। (৪) শিশুদের টীকা দিতে হবে : ৬ মাস বয়সের শিশু থেকে ২৪ বছর পর্যন্ত যাদের বয়স তাদের দ্রুত টিকা দিতে হবে। (৫) টিকা নিতে হবে নিজেকেও : কেবল পরিবারের শিশুরা নয় টিকা হাতের কাছে সহজলভ্য হলে পরিবারের সক্ষম পুরুষটিরও উচিত টিকা নিয়ে নেয়া। (৬) প্রতিরোধ জন্মাতে সময় লাগবে : একডোজ টিকা দিলেই যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা জন্মাবে অর্থাৎ সোয়াইন ফ্লু প্রতিরোধ সম্ভব হবে এটা ভাবা ঠিক নয়। এই টিকার অন্তত দু’টা ডোজ সম্পূর্ণ করতে হয়। তবেই সোয়াইন ফ্লুকে চ্যালেঞ্জ জানানো সম্ভব হবে। (৭) টিকাগুলো নিরাপদ ও পরীক্ষিত : সোয়াইন ফ্লুর সমস্ত টিকা নিরাপদ এবং কার্যকর। ওষুধ কম্পানিগুলো যথাযথ পরীক্ষা নিরীক্ষা করেই টিকা বাজারজাত করছে। (৮) চারপাশে সোয়াইন ফ্লু হলে যা করণীয় : এক্ষেত্রে জনসমাগমে না যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। (৯) অসুস্থ হয়ে পড়লে কী করণীয় : ফ্লুর মত উপসর্গ দেখা দিলে ঘরে বসে চিকিৎসা নিন, প্রচুর তরল খাবার খান, চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। (১০) খাবার দাবার থেকে সোয়াইন ফ্লু ছড়ায় না : নির্দ্বিধায় খাবাব, চিকেন তন্দুরি খেতে পারেন এসব থেকে ফ্লু ছড়ায় না।